আজ বুধবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০১৯ ইং

গুলশান হামলা ও ইসলামি জঙ্গিবাদ

সাব্বির হোসাইন  

জেহাদি জঙ্গিরা, মানে যারা কিলিং-ভায়োলেন্সে অংশ নেয়, তারা স্রেফ ধর্মীয় উন্মাদনার কারণে নৃশংসতা করে।

আর যারা এই জঙ্গিদের চালায়, মানে তাদের থিউরিটিকাল গুরু ও প্রধানদের উদ্দেশ্য থাকে ক্ষমতা ও অর্থ; আইসিসের তেল ব্যবসায়, তালেবানদের মাদক ব্যবসায়, আলকায়েদার অস্ত্র ব্যবসায় এবং উপ/ছায়া সরকারের কথা উল্লেখযোগ্য।

বর্তমানে বাংলাদেশ ইসলামি জঙ্গিদের দ্বারা আক্রান্ত।

২০১৩ সাল হতে নিয়মিতভাবে নাস্তিক, ভিন্নমতাবলম্বী ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের টার্গেট করে আক্রমণের ধারাবাহিকতায় বর্তমানে তারা বৃহৎ সহিংসতা সংঘটিত করছে- জঙ্গি হামলায় গুলশানের মর্মান্তিক ঘটনা বাংলাদেশের বুকে দীর্ঘস্থায়ী ক্ষত সৃষ্ট করেছে; জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণ না করলে, এই ক্ষত গভীরতর হবে।

আইসিস ও আলকায়েদার ভাবশিষ্য জেএমবি ও আনসার আল ইসলাম এবং হিজবুত তাহরির বর্তমানে বাংলাদেশে জঙ্গি হামলা ও টার্গেট কিলিং সংঘটন করছে, এটি নিঃসন্দেহে সত্য।

এদেরকে আড়াল হতে এধরণের কাজে আরো উৎসাহিত করে আর্থিক ও লজিস্টিক সার্পোট দিচ্ছি জামাত-ই-ইসলামি।

জামাত নিজ তরিকা হতে ভিন্ন এসব জঙ্গিসংগঠনকে আড়াল হতে স্পন্সর ও প্রভাবিত করছে।

তবে, এটিও সত্য যে, জামাত স্পন্সর না করলেও এই জঙ্গি সংগঠনগুলো জঙ্গি হামলা করতো।

যেহেতু তাদের কার্যক্রমে জামাত গেইনার, তাই জামাত আড়াল হতে তাদের সহযোগিতা, উৎসাহিত ও প্রভাবিত করছে।

দেশকে জঙ্গি হামলায় আক্রান্ত করে পাক-আফগান-আরব-নাইজেরিয়ার মত গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়ে প্রধানতম ইসলামি দল হিসেবে জামাতের ছায়া/উপ সরকার গঠন করার পরিকল্পনা আছে।

জামাত বর্তমানে নিজ অস্তিত্ব রক্ষার জন্য একটি কৌশল হিসেবে এমনটি করছে।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার-শাস্তি ও শাহবাগ আন্দোলনের ফলাফল হিসেবে জামাতের পিঠ এখন দেয়ালে ঠেকে গেছে, রাজনৈতিক ও সামাজিক দু'দিক হতেই।

অস্তিত্ব রক্ষার জন্য জামাতিরা নিজ তরিকা হতে ভিন্ন হেফাজত-ই-ইসলামকে ব্যবহার করে।

সামাজিকভাবে হেফাজতের ব্যবহার সফল কিন্তু রাজনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়।

জামাতের শেষ চেষ্টা হলো, জঙ্গি সহিংসতার মাধ্যমে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি, পরিণতিতে গৃহযুদ্ধ এবং প্রধানতম ইসলামি রাজনৈতিক দল হিসেবে জামাতের উপ/ছায়া সরকার গঠন; যেমনটি মধ্যপ্রাচ্যে হচ্ছে। সেদিকেই এগুচ্ছে বাংলাদেশ।

আর এখানে জামাত নিজে সহিংসতায় যুক্ত হচ্ছে না বরং ইতোমধ্যে সহিংসতায় জড়িত অন্যান্য ইসলামি সংগঠনগুলোকে প্রভাবিত ও স্পন্সর করছে; এতে করে জামাতের ভালোমানুষি চেহারা বজায় থাকছে।

জামাতের এই পরিকল্পনায় যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা এতে বড় ভূমিকা রাখছে। তাদের সন্তানরা যুদ্ধাপরাধী পিতার ফাঁসিকে হত্যা হিসেবে দেখছে। তারা পিতৃহত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এইসব জঙ্গি সহিংসতার ঘটনায় জামাতের হয়ে স্পন্সরের ভূমিকা পালন করছে।

এইসব ঘটনার বেনেফিসিয়ারি হিসেবে স্পন্সরের ভূমিকায় জামাতের পাশাপাশি বিএনপি ও পাকিস্তানি আইএসআই-এর নাম ঘুরে ফিরে আসে।

এসবের প্রমাণ জঙ্গিদের অস্ত্র ও অর্থায়নের উৎস এবং তাদের যোগাযোগ মাধ্যমের তথ্যগুলো খুঁজলে পাওয়া যায়।

বুদ্ধিমানের জন্য ইশারা যথেষ্ট, সরকারের আশা করি, বুদ্ধির কমতি নেই।

ইমেজ ধরে রাখতে যেয়ে রাষ্ট্রসহ পুড়ে যাবার মানে হয় না।

জঙ্গিবাদের এই কালো থাবা হতে পরিত্রাণ পেতে ইসলামি এসব জঙ্গিদের তাদের স্পন্সর সহ দমনই একমাত্র পন্থা।

সাব্বির হোসাইন, প্রতিষ্ঠাতা ও সমন্বয়ক, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার ও গবেষণা কেন্দ্র

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ১৮ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১১ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৩২ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৪২ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৬ এনামুল হক এনাম ২৪ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৩ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১০ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৫৮ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২১ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২১ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ১৭ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩১ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৪ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ৮৯ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম মুহম্মদ জাফর ইকবাল ৯৫ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৬৩ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম রাজেশ পাল ১৮ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৪ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ