নিজস্ব প্রতিবেদক

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৪:২৯

শিরোপা ধরে রাখার লক্ষ্য জ্যোতিদের

নারী এশিয়া কাপ

মেয়েদের এশিয়া কাপ ক্রিকেটের আগের আসরের চ্যাম্পিয়ান বাংলাদেশ। এবার তো আরও ঘরের মাঠে খেলা। চেনা মাঠ, চেনা আবহাওয়া ার নিজেদের দর্শক। ফলে এবার স্বাভাবিকভবেই লক্ষ্য শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখা। সেই লক্ষ্য নিয়েই শনিবার মাঠে নামবে বাংলাদেশের মেয়েরা।

শনিবার সকালে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামের গ্রাউন্ড-২ তে বাংলাদেশ-থাইল্যান্ডের ম্যাচ দিয়েই মাঠে গড়াবে মেয়েদের এশিয়া কাপ ক্রিকেট। এবার এই টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে সাতটি দল।

এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট নিজেদের হাতছাড়া না করার লড়াইয়ে নামার আগে শুক্রবার শেষবারের মতো নিজেদের ঝালাই করে নিয়েছেন জ্যোতি-সালমারা। দুপুরে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন করে বাংলাদেশ দল। এসময় থাইল্যান্ডও অনুশীলন সেরে নেয়।

অনুশীলনের আগে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন বাংলাদেশ দলনেতা নিগার সুলতানা জ্যোতি। আগের দিন সালমা জানিয়েছিলেন নির্দিষ্ট কোন টার্গেট নয়, ম্যাচ বাই ম্যাচ ভালো করতে চান তারা। তবে শুক্রবার কোন রাখঢাক না রেখেই নিজেদের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে দিলেন জ্যোতি। জ্যোতির লক্ষ্য দুটি- ভালো খেলা আর ট্রফি ধরে রাখা।

 তিনি বলেন, আমরা ভালো খেলতে চাই। সাম্প্রতিক সময়ে আমরা ভালো খেলছিও। সেটা ধরে রাখতে চাই। এই ট্রফিটা আমাদের ছিলো। সেটা ধরে রাখার চেষ্টা করবো। ভালো খেললেই সেটা সম্ভব ।
 
প্রতিপক্ষ নিয়েও ভাবছেন না জ্যোতি। তার মতে, অন্য টিম নিয়ে আমাদের ভাবনার কিছু নেই। আমরা আমাদের সেরাটা খেলতে চাই। প্ল্যান মতো কাজ করতে পারলে আমরা সফল হব।

মেয়েদের সবচেয়ে বেশি খেলা হয় সিলেটের মাঠেই। অনুশীরন ক্যাম্পও হয় এখানে। ফলে সিলেটই তাদের হোম গ্রাউন্ড জানিয়ে জ্যোতি বলেন, মেয়েদের হোম ভেন্যু সিলেট। এখানে আমরা সবসময় খেলি। এই হোম ভেন্যুর সুবিধা কাজে লাগাতে চেষ্টা করবো। আমরা যেহেতু এখানে বেশি খেলি তাই এখানকার সবকিছুই আমাদেও পরিচিত।

ঘরের মাঠে খেলায় সুবিধা যেমন আছে তেমন আছে চাপও। থাকে দর্শকের প্রত্যাশার চাপও। তবে এসব চাপ একেবারেই আমলে নিতে চান না জ্যোতি। তার ভাষ্য- নিজের ঘওে খেলার কোন চ্যালেঞ্জ নেই। আমাদের টার্গেট ম্যাচ বাই ম্যাচ খেলা। আলাদা কোন পরিকল্পনাও নেই আমাদের। যখন যে পরিস্থিতি আসে সে পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে হবে। আমি ভালো ফর্মে আছি, সেটা ধরে রাখতে পারলে টিমের জন্য ভালো হবে। অন্যদেরও সেরাটা দিতে হবে।

মাঠ চ্যালেঞ্জ নয়, প্রতিপক্ষ নিয়েও ভাবনা নেই। তাহলে চ্যালেঞ্জ কি তাও জানালেন জ্যোতি- চ্যালেঞ্জ হচ্ছে পুরো টিম মিলে ভালো পারফর্ম করা। এটা না করতে পারলে সাফল্য আসবে না। ব্যাটিং, বোলিং ফিল্ডিং তিনটি ক্ষেত্রেই ভালো করতে হবে এবং সবাইকে পারফর্ম করতে হবে।

এই শরতেও সিলেটে গরম প্রচুর। দিনভর কাটাফাটা রোদ। তবে আবহাওয়ার এই বৈরিতা তেমন সমস্যা সৃষ্টি করবে না জানিয়ে ট্রাইগ্রেস দলনেতা বলেন, আবহাওয়া নিয়ে চিন্তা করছি না। আবুদাবিতে আরও গরম ছিলো। আমরা সেখানে কিছুদিন আগেই খেলে এসেছি। ওখানে কোন সমস্যা হয়নি। কেউ ইনজুরি হয়ও নি। এখানেও আমরা চাইবো সবাই যাতে পুরো ফিট থাকে। ইনজুরি কাটিয়ে পেসার জাহানারা আলমের দলে ফেরাও বাড়তি শক্তি হিসেবে কাজ করবে বলে জানালেন তিনি।

দলের সাম্প্রতিক পারফরমেন্সে সন্তুষ্ট প্রধান কোচ একেএম মাহমুদ ইমনও। সেটি ধরে রাখতে পারলেই চ্যাম্পিয়ান হওয়া সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

ইমন বলেন, দল উন্নতি করছি। পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করছে। গত কয়েকটি টুর্নামেন্টে আমরা ভালো খেলছি। সব খেলোয়াড় ছন্দে আছে। ফলে এখানেও ভালো কিছু হবে বলে আশা করছি।

কোচ মনে করেন বাংলাদেশ দল এখন যে অবস্থানে আছে তাতে অন্য টিমকে নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই। বরং নিজেদের সেরাটা দেয়ার লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নামতে হবে।  এশিয়া কাপের আগে প্রস্তুতি নিয়েও সন্তুষ্ঠ কোচ।

দল নিয়ে সন্তুষ্ঠ কোচ। অধিনায়কের কণ্ঠে ট্রফি ধরে রাখার প্রত্যয়। এবার মাঠে তার প্রতিফলন দেখানোর পালা। সেটা সম্ভব হলে ফুটবলের পর ক্রিকেটে মেয়েদের সাফল্য নিয়ে আরেকটা উদযাপন হতেই পারে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত