Advertise

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৬ মার্চ, ২০২০ ২০:১৯

সমাধিসৌধে একাকী ঘুরে-ঘুরে শহীদদের শ্রদ্ধা জানালেন মুক্তিযোদ্ধা

স্বাধীনতা দিবস

ছবি: ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে একাকী ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন শহীদ সমাধি ও সৌধে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান।

বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) মৌলভীবাজারের শাহ মোস্তফা সড়কে অবস্থিত শহীদ স্মৃতিসৌধ, সাত শহীদের স্মৃতিস্তম্ভ, প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (পিটিআই) গণকবর এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে তিনি শ্রদ্ধা জানান।

সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস সৃষ্ট কভিড-১৯ রোগের কারণে এবার রাষ্ট্রীয় পক্ষ থেকে স্বাধীনতা দিবসের সকল অনুষ্ঠান স্থগিত করা হয়েছে। এই ভাইরাসের বিস্তৃতি ঠেকাতে দেশের মানুষদের প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না যাওয়ার সরকারি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। রাস্তায় প্রয়োজন ছাড়া একাধিক মানুষের সমাগমেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

সরকারি সেই নিষেধাজ্ঞা পালন করেই একাকী বিভিন্ন শহীদ সমাধিতে পৌঁছান মৌলভীবাজারের জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান। ইতিহাসের দায়শোধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে একা হাজির হন এইসব শহীদ সমাধিতে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমানের একাকী এই শ্রদ্ধা প্রদর্শনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শেয়ার করেন কয়সর আহমেদ নামের একজন। তিনি জানান, বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের জন্য এবার ব্যাপক আকারে দিনটি পালন হচ্ছেনা। এরমধ্যে চলাচল সীমিত করা হয়েছে। জনাব আজিজুর রহমান তারপরও নিজে ছুটে এসেছেন শহীদদের জন্য দোয়া করতে। হ্যাঁ, তিনি একা এসেছেন। শাহমোস্তফা সড়কে শহীদ সমাধিতে দোয়া করতে দেখে উনার অজান্তেই ছবিগুলো তুলা হয়। হয়ত ছবিগুলো পোস্ট করে ঠিক করিনি। কিন্তু যখন মন্ত্রীদের ২৫-৩০ জন নিয়ে দায়িত্ব পালন দেখি তখন এসব না দেখিয়ে থাকতে পারিনা। দোয়া শেষ করে ২-৩ জন দেখে তিনি ইশারায় চলে যেতে বলেন। আমরাও চলে যাই। যাবার সময় ভাবছি এখনো, এই বয়সে দায়িত্ব নিয়েই কর্তব্য পালন করছেন, রাষ্ট্রীয় বিধি নিষেধ মানছেন। অথচ প্রচারের অংশ হচ্ছেন না। একবুক ভালোবাসা শ্রদ্ধেয় অভিভাবক জনাব আজিজুর রহমান আপনার জন্য। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ স্বাধীনতা পদক আপনার, আপনাদের জন্যই। বেঁচে থাকুন অনেকদিন আমাদের মাঝে, মুজিব আদর্শের সৈনিকদের অভিভাবক হয়ে।

স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালে স্থানীয় আওয়ামী লীগের সমন্বয়কারী হিসেবে নিজ দায়িত্ববোধ থেকে আমি শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। পাশাপাশি করোনাভাইরাসের কারণ সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে একা শ্রদ্ধা জানাই।

তিনি বলেন, আমার অনেক সহযোদ্ধা মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে স্মৃতিসৌধ, বেড়িপারস্থ সাত শহীদের স্মৃতিস্তম্ভ, মৌলভীবাজার কোর্ট এলাকার প্রাইমারী টিচার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (পিটিআই) গণকবর এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছি। এসব জায়গায় যেতে আমি কাউকে সঙ্গে নিইনি, নিজ দায়িত্ববোধ থেকে আমি আমার দায়িত্ব সম্পাদনের চেষ্টা করেছি।

উল্লেখ্য, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান একাত্তরে নিজে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে তিনি দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে সরকার ২০২০ সালে তাকে স্বাধীনতা পুরস্কারের জন্যে মনোনীত করে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত