আজ সোমবার, ২২ জুলাই, ২০২৪

Advertise

শিক্ষিত হয়েও কেন আমরা অলৌকিক বিষয়ে আস্থা রাখতে চাই!

এনামুল হক এনাম  

মানুষের মনোবিজ্ঞানের মধ্যে এক গভীর এবং জটিল প্রক্রিয়া রয়েছে যা মানুষের মস্তিষ্কের বিবর্তন ধারায় বিকশিত হয়েছে। মানুষের মস্তিষ্ক একটি জটিল এবং বিশৃঙ্খল তথ্যকে সুশৃঙ্খল করার মাধ্যমে শরীরবৃত্তীয় কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করে। যখন মস্তিষ্ক কোনো ঘটনা বা শব্দের ব্যাখ্যা করতে ব্যর্থ হয়, তখন শরীরে ভয়ের উদ্রেক ঘটে। এটি একটি প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষা প্রক্রিয়া যা শরীরকে সম্ভাব্য বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য প্রস্তুত করে।

তবে, সমাজে প্রচলিত কুসংস্কারগুলোর ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, অনেকেই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার পরিবর্তে অতিলৌকিক ব্যাখ্যা গ্রহণ করে। এই প্রবণতার পিছনে মনস্তাত্ত্বিক এবং সামাজিক কিছু কারণ রয়েছে।

প্রথমত, মানুষের মস্তিষ্ক প্রাথমিকভাবে কগনিটিভ বায়াস এবং হিউরিস্টিক্সের মাধ্যমে কাজ করে। কনফার্মেশন বায়াস হলো একটি সাধারণ প্রবণতা যেখানে মানুষ এমন তথ্য এবং বিশ্বাস খোঁজে যা তাদের পূর্বধারণা এবং বিশ্বাসকে সমর্থন করে। অতিলৌকিক ব্যাখ্যা অনেক সময় এমন কিছু বিশ্বাসকে সমর্থন করে যা আগে থেকেই মানুষের মনে রোপিত থাকে। অন্যদিকে, অ্যাভেইলেবিলিটি হিউরিস্টিক হলো সেই প্রবণতা যেখানে মানুষ সহজলভ্য বা সম্প্রতি ঘটেছে এমন তথ্য বা ঘটনা বেশি মনে রাখে। অতিলৌকিক ঘটনাগুলো সাধারণত বেশি স্মরণীয় এবং সহজলভ্য হওয়ায় মানুষ এগুলোর প্রতি বেশি আকৃষ্ট হয়।

দ্বিতীয়ত, মস্তিষ্কের এভোল্যুশনারি প্রোগ্রামিংও এর একটি বড় কারণ। মানুষের মস্তিষ্কের একটি প্রাকৃতিক প্রবণতা হলো অ্যাজেন্সি ডিটেকশন, যা একটি সুরক্ষা প্রক্রিয়া হিসাবে কাজ করে। মস্তিষ্ক সম্ভাব্য বিপদ থেকে বাঁচার জন্য পরিস্থিতির পেছনে কোনো কার্যকরী শক্তি খোঁজে। অতিলৌকিক ব্যাখ্যাগুলো এই প্রবণতাকে প্রভাবিত করে, যেখানে মানুষ প্রাকৃতিক ঘটনাগুলোর পেছনে অতিলৌকিক কারণ খোঁজে। হাইপার-অ্যাজেন্সি ডিটেকশন ডিভাইস (HADD) তত্ত্ব অনুযায়ী, মানুষের মস্তিষ্ক অতিরিক্তভাবে উদ্দেশ্য বা এজেন্সি শনাক্ত করার চেষ্টা করে, যা কুসংস্কারের প্রতি প্রবণতাকে বাড়িয়ে তোলে।

তৃতীয়ত, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক প্রভাবও এর একটি বড় কারণ। সমাজে প্রচলিত প্রথাগত এবং সংস্কৃতিগত বিশ্বাস মেনে চলার জন্য মানুষের ওপর সামাজিক চাপ থাকে। কুসংস্কার এবং অতিলৌকিক বিশ্বাসগুলো সমাজে প্রভাবশালী হওয়ায় মানুষ সহজেই এগুলোর প্রতি আকৃষ্ট হয়। সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার হিসেবেও কুসংস্কার এবং অতিলৌকিক বিশ্বাস প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে প্রবাহিত হয়ে আসে। এই বিশ্বাসগুলো সংস্কৃতিগতভাবে প্রতিষ্ঠিত এবং মান্য করা হয়।

সর্বশেষে বলি, অতিলৌকিক ব্যাখ্যা মানুষের মনস্তাত্ত্বিক আরাম দেয়। জটিল এবং অপ্রকাশিত ঘটনাগুলোর সহজ ব্যাখ্যা হিসেবে অতিলৌকিক ব্যাখ্যা মানুষকে মানসিক আরাম দেয় এবং তাদের মধ্যে একটি মিথ্যা নিরাপত্তার অনুভূতি তৈরি করে। এতে তাদের মনস্তাত্ত্বিক চাপ কমাতে সাহায্য করে।

রেফারেন্স:
1. Tversky, A., & Kahneman, D. (1974). Judgment under Uncertainty: Heuristics and Biases. Science.
2. Nickerson, R. S. (1998). Confirmation Bias: A Ubiquitous Phenomenon in Many Guises. Review of General Psychology.
3. Barrett, J. L. (2000). Exploring the Natural Foundations of Religion. Trends in Cognitive Sciences.
4. Atran, S. (2002). In Gods We Trust: The Evolutionary Landscape of Religion. Oxford University Press.
5. Berger, P. L., & Luckmann, T. (1966). The Social Construction of Reality: A Treatise in the Sociology of Knowledge. Penguin Books.
6. Hofstede, G. (1980). Culture's Consequences: International Differences in Work-Related Values. Sage Publications.

এনামুল হক এনাম, কলামিস্ট, সাহিত্যিক, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী ৪৮ অধ্যাপক ডা. শেখ মো. নাজমুল হাসান ২৬ অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১১ আজমিনা আফরিন তোড়া ১০ আনোয়ারুল হক হেলাল আফসানা বেগম আবদুল গাফফার চৌধুরী আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ৩২ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল ১০ আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৮ আরিফ রহমান ১৬ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৫৪ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইনাম আহমদ চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ৭১ ইয়ামেন এম হক এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন একুশ তাপাদার এখলাসুর রহমান ৩৭ এনামুল হক এনাম ৪৪ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ৩৩ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৬৪ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান কেশব কুমার অধিকারী খুরশীদ শাম্মী ১৭ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ৪৪ জহিরুল হক মজুমদার জাকিয়া সুলতানা মুক্তা জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুনাইদ আহমেদ পলক জুয়েল রাজ ১০৯ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ১২ ড. কাবেরী গায়েন ২৩ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ড. শামীম আহমেদ ৪১ ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ ২০ ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার তোফায়েল আহমেদ ৩২ দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৭ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক প্রফেসর ড. মো. আতী উল্লাহ ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৪২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার জাকির হোসেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৮ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১৯১ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১৫৩ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক ১৪ রণেশ মৈত্র ১৮৩ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ৫৫ রাজু আহমেদ ১৯ রাজেশ পাল ২৮ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩৮ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাওন মাহমুদ