আজ শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

Advertise

তামিল টাইগারদের মেরেকুটে বিদায় করলেও শ্রীলঙ্কা নিরাপদ হতে পারেনি

ফজলুল বারী  

শ্রীলঙ্কার ঘটনা নিয়ে আজ সারাদিন পড়লাম। মোট ১৩ জন আত্মঘাতী অংশ নিয়েছে রক্তক্ষয়ী এই হত্যাকাণ্ডে! বাংলাদেশে একদিনে ৫০০ বোমা হামলার ঘটনা মনে পড়ে গেলো। সেদিন শুধু মুন্সিগঞ্জে বোমা ফাটেনি। আমি তখন অনুসন্ধানে পেয়েছিলাম, মুন্সিগঞ্জে বোমার দায়িত্ব যার ছিল সে দেরি করে পৌঁছায় সেটি আর বিস্ফোরণ ঘটাতে পারেনি। চারদিনের পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে অবিস্ফোরিত সেই বোমাটি নিয়েই পালিয়ে যায়। ঢাকার আশেপাশের বোমাবাজরা বিভিন্ন এলাকায় বোমা ফাটিয়ে ঢাকার কাকরাইল মসজিদে এসে জড়ো হয়। এখান থেকে যার যার মতো করে পালিয়ে যায়।

তখন জঙ্গিদের মূল উদ্দেশ্য ছিলো নিজেদের শক্তির জানান দেয়া। মাঝে একবার চায়ের ফ্যাক্সে বিস্ফোরক নিয়ে আত্মঘাতী বোমাবাজ দলের প্রকোপ বেড়েছিল। এমন এক ঘটনায় একটি ছেলে দৈবাৎ মরেনি। ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমি তার সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। আমাকে সে বলেছিল যে তাকে তৈরি করে পাঠিয়েছে আগের তিন রাত তার সঙ্গে ছিল। একসাথে খেয়েছে, নামাজ পড়েছে। ঘটনার দিন সকালে তাকে অভিযানে বের করার আগে বলেছে- পরের মিশনে সে আসছে। তার সঙ্গে তার দেখা হবে বেহেস্তে। সেই ঘটনায় বেঁচে যাওয়াতে সে অন্তত জানতে পারছে যে লোকটি তাকে পাঠিয়েছে সে কোনদিন মিশনেও যাবেনা। বেহেস্তেও তার সঙ্গে দেখা হবেনা।

ওই ছেলেটি মাদ্রাসা পড়তো। আমি তাকে বলেছিলাম- তুমি মাদ্রাসায় পড়ো, এমনিতে তো বেহেস্তে যাবে। এসব করার দরকার কী। আমাকে সে জবাব দিয়ে বলেছিল, মাদ্রাসায় পড়লেই বেহেস্তে যাবার কোন গ্যারান্টি নাই ভাই। তখন আমি তার মগজ ধোলাইর মাত্রাটা বুঝতে পারি।

বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে এর নেতারা দেশে জঙ্গি উপস্থিতির কথা স্বীকার করতে চাইতেননা। বলতেন সব আওয়ামী লীগের ষড়যন্ত্র। বাংলা ভাই নামের কেউ নেই, সব মিডিয়ার সৃষ্টি এমনওতো বলেছিলেন সেই সময়ের জামায়াতি যুদ্ধাপরাধী মন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী। গোপালগঞ্জের বানিয়ারচরের গির্জায় হামলার পর সেটিকে খ্রিস্টানদের অভ্যন্তরীণ বিরোধ বলার চেষ্টাও হয়েছে।

জঙ্গি হামলার আশংকায় যখন প্রেসিডেন্ট ক্লিনটনের বাংলাদেশ সফরের সময় সাভার স্মৃতিসৌধে যাওয়া, বঙ্গবন্ধু মিউজিয়ামে যাওয়ার কর্মসূচি বাতিল হয়। তখন মিডিয়ায় লেখা হয়েছে আমেরিকা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে, বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে ছিল, সেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট সাভার স্মৃতিসৌধ আর বঙ্গবন্ধু মিউজিয়ামে যান কী করে! অথচ মার্কিনীরা বলেছিল- তাদের রাডারে দুই জঙ্গির কথোপকথন ধরা পড়েছে। প্রেসিডেন্ট সাভারে হেলিকপ্টারে যাবার পথে কাঁধে বহনযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রের মাধ্যমে হেলিকপ্টারে আঘাত করার কথা বলছিল দুই জঙ্গি!

ক্লিনটন এ অবস্থার মধ্যেও ঢাকা এসেছেন ঠিক, কিন্তু প্রচলিত এয়ারফোর্স ওয়ান ঢাকা আসেনি। ছোট একটি বিমানে সকালে দিল্লি থেকে ঢাকা এসে বিকালে আবার দিল্লি ফিরে যান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তৎকালীন বিরোধীদলের নেত্রী খালেদা জিয়া হোটেল সোনারগাঁওতে গিয়ে ক্লিনটনের সঙ্গে দেখা করেন। ক্লিনটন যতক্ষণ ঢাকায় ছিলেন, ঢাকায় একরকম কার্ফুর অবস্থা বিরাজ করছিলো।

আবার শ্রীলঙ্কার বিষয়ে ফেরা যাক। হোটেলের বুকিং দেখে এক আত্মঘাতীর নাম মোহাম্মদ আজম বলে শনাক্ত করা হয়েছে। সম্ভবত এটিও তার আসল নাম না। মোহাম্মদ আজমের যে ভিডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সেটি দেখে শ্রীলঙ্কার ঢিলেঢালা নিরাপত্তা ব্যবস্থারই যেন জানান দেয়। একটা লোক পিঠের ব্যাগে বিস্ফোরক নিয়ে হোটেলে লাইনে দাঁড়িয়ে নাস্তা নিয়ে খেলো। এরপর হেঁটে ঢুকে গেলো গির্জায়! কেউ কোথাও তার ব্যাগ চেক করেনি? সে তুলনায় বলবো বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা এখন অনেক ভালো। সর্বশেষ নানান জঙ্গি নির্মূলে বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এই সক্ষমতা আরও বাড়াতে হবে।

একবার সার্ক সম্মেলন উপলক্ষে আমি শ্রীলঙ্কা যাবার চেষ্টা করেছিলাম। তামিল টাইগারদের আমলের কারণে তখন ভিসা নিয়ে বেশ কড়াকড়ি ছিল। হাতে সময় কম থাকায় আমারও তখন আর যাওয়া হয়নি। শ্রীলঙ্কায় যে সব সহকর্মী রিপোর্টাররা গেছেন তারা বলেছেন, সেখানে তখন রাতবিরাতে ঘুম থেকে জাগিয়ে অতিথিদের হোটেল কক্ষ তল্লাশি করা হতো। তামিল টাইগারদের মেরেকুটে দেশছাড়া করে শ্রীলঙ্কা নিজেদের যেভাবে নিরাপদ ভেবেছিল আদতে তা যে না এই ঘটনা সেটি সবার চোখে আঙুল উঁচিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে।

এখন শ্রীলঙ্কার বড় আয়ের উৎস পর্যটন। সারা দুনিয়া থেকে পর্যটকরা দেশটিতে ঘুরতে যান। সবচেয়ে বেশি যান ভারত থেকে। এখন সেখানে পর্যটনের ভরা মওসুম। গির্জা হত্যাকাণ্ডের মাশুল গুনবে শ্রীলঙ্কার পর্যটন শিল্প। পরিস্থিতি দ্রুত স্বাভাবিক করে পর্যটকদের মনে আস্থা আনতে দেশটি যে চেষ্টা করছিল তাতে পানি ঢেলে দিয়েছে আমেরিকা। বৃহৎ শক্তিধর দেশটি শ্রীলঙ্কায় আরও হামলার আশংকার কথা জানিয়েছে।

ফজলুল বারী, প্রবাসী সাংবাদিক

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী ১৪ অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া ১০ আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২৯ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৫ আরিফ রহমান ১৬ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৪৯ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইনাম আহমদ চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ৬০ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ২৪ এনামুল হক এনাম ৩০ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ২৮ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩৫ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১৪ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জাকিয়া সুলতানা মুক্তা জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭৭ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ১২ ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৭ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩৪ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৮ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১৫৫ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১৪০ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক ১৩ রণেশ মৈত্র ১৮৩ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ৩৩ রাজেশ পাল ২৪ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩৪ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম আহমেদ শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম

ফেসবুক পেইজ