আজ বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

Advertise

বাংলাদেশেই কেন নয়?

এস এম নাদিম মাহমুদ  

জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল থেকে ১০ টাকা মূল্যের বহির্বিভাগের রোগীর টিকেট কেটে চোখের চিকিৎসা নিয়েছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসা নিয়েছেন দেখে আমাদের গণমাধ্যমে আনন্দের বন্যা বয়ে গেছে। প্রায় প্রতিটি দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা তো সেই দেশেই চিকিৎসা নেন, কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসা নেয়ার পর আমরা কেন পুলকিত হচ্ছি?

কয়েকদিন আগে দেশের সরকারি হাসপাতালে প্রথমবারের মতো মিনিমালি ইনভাসিব কার্ডিয়াক সার্জারি করা হয়েছে যেখানে বুক ফাঁক না করে, পাঁজরের হাড় না কেটে সফল অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। বোনমেরু ট্রান্সপ্লান্টেশন থেকে শুরু করে লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্তদের স্টেমসেল প্রতিস্থাপন করার মতো সাফল্য বাংলাদেশের ডাক্তারদের রয়েছে। এতো সাফল্য থাকার পর বাংলাদেশের ডাক্তারদের অবহেলার সুযোগ কারা করে দিচ্ছে?

এই দেশে চিকিৎসার দুর্বলতা কোথায়? কথায় কথায় এই দেশের রাষ্ট্র প্রধান থেকে শুরু করে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্তদের বিদেশমুখী চিকিৎসা গ্রহণ বাংলাদেশের জন্য কতটা হুমকির কারণ তা কেউ কি ভেবেছেন? কেন সরকার প্রধানরা আমাদের ডাক্তারদের প্রতি নির্ভার থাকতে পারেন না?

পাঁচ বছর মেডিকেলে পড়ার পর সীমাহীন পরিশ্রমে উচ্চতর ডিগ্রি নেয়ার পরও এই দেশে চিকিৎসকদের যেভাবে অবহেলা করা তাই বিশ্বের খুব দেশেই করা হয়। দেশে প্রতি বছর চিকিৎসার যে পরিমাণ অর্থ বিদেশি ডাক্তারদের হাতে চলে যাচ্ছে, তা দিয়ে বিশ্বের যেকোনো বড় হাসপাতালের মত কয়েকটি বিশ্বমানের চিকিৎসাকেন্দ্র বাংলাদেশেই করা সম্ভব হতো। তাহলে আমরা চিকিৎসার জন্য ভিনদেশিদের উপর কেন নির্ভর করবো? যে চিকিৎসা প্রতিবেশি দেশে সহজে করা যায় অত্যন্ত কম খরচে সেইগুলো বাংলাদেশে সম্ভব হচ্ছে না কেন?

এই যে দেখুন, জাপানে, আপনি সরাসরি হাসপাতালে কখনোই ভর্তি হতে পারবেন না। এখানে ক্লিনিকগুলো যখন মনে করবে, আপনার হাসপাতালে চিকিৎসার প্রয়োজন, তখন তারা সেখানে পাঠাবে এর আগে কখনো নয়। কিন্তু আমাদের দেশে ডাক্তারদের তোয়াক্কা না করে সুযোগ পেলেই বিদেশে চিকিৎসা করানো এক ধরনের ট্রেন্ড হয়ে গিয়েছে। কিন্তু কেন আমাদের ডাক্তারদের অবহেলা করছি?

বলা হচ্ছে, দেশের সবচেয়ে মেধাবী মানুষরা এদেশে চিকিৎসক হন। সরকারি কলেজেরটা বাদই দিলাম, আমাদের দেশে ব্যাঙের ছাতার মত গজে উঠা বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো থেকে প্রতি বছর যে পরিমাণ ডাক্তার বের হচ্ছে, এদের মধ্যে কতজন ডাক্তার হিসেবে গড়ছেন তা ভাবনার বিষয়। লাগামছাড়া ও দেখভালের অভাবে আমাদের দেশে চিকিৎসাসেবা হুমকির মুখে।

চিকিৎসা সেবার সহজ প্রাপ্যতা আনতে, প্রতিবেশি দেশের ভিসা সহজকরণ, এই দেশের ডাক্তারদের গলাটিপে হত্যার সামিল। লক্ষ্য ঠিক না থাকলে, আমাদের চিকিৎসাবিদ্যায় পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীদের এই পেশায় যেতে অনীহা আসবে।

সরকার নিয়ম করুক, এই দেশের চিকিৎসকদের কিংবা কোন বিশেষ কমিটির রেফার্ড ছাড়া দেশের বাহিরে চিকিৎসা সেবা নেয়া যাবে না, হোক সে রাষ্ট্রপতি কিংবা প্রধানমন্ত্রী, দেখবেন, এই দেশেই ভালো চিকিৎসা হচ্ছে, ভালো ভালো যন্ত্রপাতি সম্পন্ন হাসপাতাল হচ্ছে, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

এস এম নাদিম মাহমুদ, গবেষক, ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাপান

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী ৪৮ অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১১ আজমিনা আফরিন তোড়া ১০ আনোয়ারুল হক হেলাল আফসানা বেগম আবদুল গাফফার চৌধুরী আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ৩২ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল ১০ আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৮ আরিফ রহমান ১৬ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৫৪ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইনাম আহমদ চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ৭১ ইয়ামেন এম হক এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন একুশ তাপাদার এখলাসুর রহমান ৩৭ এনামুল হক এনাম ৪৪ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ৩৩ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৬৩ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান কেশব কুমার অধিকারী খুরশীদ শাম্মী ১৭ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ৪৪ জহিরুল হক মজুমদার জাকিয়া সুলতানা মুক্তা জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুনাইদ আহমেদ পলক জুয়েল রাজ ১০৭ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ১২ ড. কাবেরী গায়েন ২৩ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ড. শামীম আহমেদ ৪১ ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ ২০ ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার তোফায়েল আহমেদ ৩১ দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৭ নাজমুল হাসান ২৪ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক প্রফেসর ড. মো. আতী উল্লাহ ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৪২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার জাকির হোসেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৮ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১৯১ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১৫৩ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক ১৪ রণেশ মৈত্র ১৮৩ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ৫৫ রাজু আহমেদ ১৯ রাজেশ পাল ২৮ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩৮ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাওন মাহমুদ