আজ সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১ ইং

Advertise

অমর একুশে বইমেলা ও চিত্তরঞ্জন সাহা

মোনাজ হক  

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার ঠিক প্রথম বছর থেকেই একুশে ফেব্রুয়ারিতে বাংলা একাডেমি চত্বরে বই বিক্রির আয়োজন দিয়ে শুরু হয় আজকের এই একুশের বইমেলা। যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে যখন সবকিছুই ভাঙাচুরা আর ধ্বংসস্তূপের মাঝে নিমজ্জিত সেখান থেকেই শুরু হয় নতুন সৃষ্টির চেতনায় এই বইমেলা। মুক্তিযোদ্ধারা যখন সবে অস্ত্র জমা দিয়ে যে যার কাজে আবার ফিরে যাচ্ছে, ছাত্ররা তাদের বিধ্বস্ত শিক্ষাঙ্গনে ছাত্র-শিক্ষকদেরকে আবার খুঁজে ফিরছে, একুশের শহীদ মিনার তখনও ধ্বংসস্তূপের নিচে। আর সেই ধ্বংসাবশেষ এর মাঝখান থেকে গড়ে উঠছে নতুন করে বাংলা বাংলাভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মৃতির শহীদ মিনার। ঠিক এমনি এক সময়েই মুক্তধারা পাবলিকেশনের স্বত্বাধিকারী চিত্তরঞ্জন সাহা ১৯৭২ সনে একুশে ফেব্রুয়ারিতে বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউসের সামনে ৩২টি বই নিয়ে চট বিছানো আঙিনায় বসে বইমেলার আদি পর্ব শুরু করেছিলেন। এসব কথা তিনিও বেশ গর্বভরেই বর্ণনা করেছিলেন একবার ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় যোগ দিতে এসে। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৬ পর্যন্ত তিনি একাই বইমেলা চালিয়ে যান। ১৯৭৮ সালে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে বইমেলার আয়োজন শুরু করে বাংলা একাডেমি।

১৯৭৮-তে যখন চিত্তরঞ্জন সাহা প্রথম বিশ্ববিখ্যাত ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় যোগ দেন তখন হাতেগোনা কিছু বাঙালি ছাত্র জার্মানিতে লেখাপড়া করতেন। সেবায় তার সাথে আমার প্রথম দেখা। দেশ থেকে শ'দুয়েক বাংলা বই নিয়ে ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় যোগ দিতে এসেছিলেন তিনি। আমরা কিছু বাংলাদেশী ছাত্র ফ্রাঙ্কফুর্ট মেলায় বাংলা বইয়ের প্রদর্শনী দেখে আনন্দে বিহ্বল হয়েছিলাম সেবার। চিত্তরঞ্জন সাহা বললেন মাত্র কিছু বই নিয়ে এতো বড়ো ইউরোপের বইমেলায় এসেছি মূলত বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার জন্যে, বই বিক্রির জন্যে নয়। তিনি অনুরোধ করলেন প্রথম দিনেই যদি সব বই কিনে ফেলি তাহলে বাংলাদেশের স্টলটি খালি হয়ে যাবে তাই শেষ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে।

ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা আসলে বই বিক্রির মেলা নয়, বরং বইয়ের পাঠক-লেখক-প্রকাশকদের মিলন মেলা। তবু চার দিনের এই মেলার শেষের দিন উপচে পড়া ভিড় বই কেনার জন্যে, আমিও সেদিন বেশ কিছু বই কিনেছিলাম তাঁর কাছ থেকে। উনি যেদিন দেশে ফিরে যান তখন একটা বই কেনার লিস্ট তাঁর হাতে দিয়ে অনুরোধ করেছিলাম বইগুলো পাঠাতে। বইয়ের মূল্য ও ডাকমাশুল ব্যাঙ্কের মাধ্যমে পরিশোধ করা হবে। তিনি যথাযথ ফিরে গিয়েই আমাকে ৪ প্যাকেট বই পাঠিয়েছিলেন। সেই থেকেই চিত্তরঞ্জন সাহা আমার একজন আপনজন হয়ে উঠেছিলেন। চিত্তরঞ্জন সাহার সাথে আমার পত্রযোগাযোগ সেই বইমেলার শুরু থেকেই। তিনি আমাকে বই পাঠাতেন নিয়মিত, সুদূর ইউরোপে বসে নতুন বইয়ের প্যাকেট খুলতে যে কি আনন্দ তা একমাত্র যারা পোস্ট প্যাকেটে বই কেনেন তারাই জানেন।

ঢাকার একুশে বইমেলা দেখতে দেখতে গত উনপঞ্চাশ বছরে প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে। তবে এখন একুশে বইমেলা আর প্রকাশকদের নিয়ন্ত্রণে নেই বাংলা একাডেমি তার পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছে। অর্থাৎ একুশে বইমেলা এখন সরকারের নিয়ন্ত্রণে। বইমেলা পরিচালনায় বাংলা একাডেমির ভূমিকা নিয়ে বিতর্ক উঠেছে। অমর একুশে গ্রন্থমেলা পরিচালনা করা বাংলা একাডেমির কাজ নয়, এটা ছেড়ে দেয়া উচিত প্রকাশকদের তত্ত্বাবধানে- এমন কথা বলছিলেন বিশিষ্টজনদের অনেকেই।

বইমেলার পথিকৃৎ হিসাবে চিত্তরঞ্জন সাহার ভূমিকার কথা আজ হয়তো অনেকেরই অজানা। মুক্তিযুদ্ধকালে অন্য দেশে আশ্রিত অবস্থায় চিত্তরঞ্জন সাহা শুরু করেছিলেন ‘মুক্তধারা’ নামে তাঁর প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের যাত্রা। ঐ সময়ে দেশের বাইরের অনিশ্চিত পরিস্থিতিতে থেকে এমন একটি উদ্যোগ নেওয়ায়া যে কতটা বীরত্বব্যঞ্জক ব্যাপার তা হয়তো আজকের সুবিধাজনক পরিস্থিতিতে আমরা যথার্থ ভাবে অনুভব করতে পারব না। কিন্তু এ কথা আমরা নির্দ্বিধায় বলতে পারি যে, দেশের প্রতি শুধু এইটুকু অবদানের জন্যও চিত্তরঞ্জন সাহা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

মোনাজ হক, সম্পাদক, আজকের বাংলা, জার্মানি।

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী ৩০ অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া ১০ আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ৩০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৬ আরিফ রহমান ১৬ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৫০ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইনাম আহমদ চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ৬১ ইয়ামেন এম হক একুশ তাপাদার এখলাসুর রহমান ২৭ এনামুল হক এনাম ৩৩ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ৩০ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩৫ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১৫ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জাকিয়া সুলতানা মুক্তা জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৮০ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ১২ ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার তোফায়েল আহমেদ দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৭ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩৪ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৮ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১৬৪ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১৫০ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক ১৪ রণেশ মৈত্র ১৮৩ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ৩৪ রাজেশ পাল ২৫ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩৪ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম আহমেদ ১৬ শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা

ফেসবুক পেইজ