বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ ইং

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি

০৫ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:০০

মঞ্চে মূর্ত হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জীবন ও সংগ্রাম

বিকেল থেকেই আকাশের মুখ ভার, ঘনঘন বিদ্যুৎ চমকাচ্ছিল সাথে ছিলো বৃষ্টির চোখরাঙ্গানিও৷ তার মধ্যেই আসতে লাগলেন দর্শকরা, অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগেই প্রায় ভরে গেল মহসীন অডিটোরিয়াম৷

"চলো সৃষ্টির উদয়াচলে" এই স্লোগানে শ্রীমঙ্গলের উচ্ছ্বাস থিয়েটার তাদের গৌরবের ২২ বছর উপলক্ষ্যে আয়োজন করেছে তিনদিনব্যাপী নাট্য উৎসবের৷ সেই নাট্য উৎসবের প্রথমদিন বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ছিলো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর শ্রীমঙ্গলের মহসীন অডিটোরিয়ামে মঞ্চস্থ হয়েছে উচ্ছ্বাস থিয়েটারের সভাপতি গোবিন্দ রায় সুমনের রচনা ও নির্দেশনায় নাটক "শঙ্খচিল"৷

গণসঙ্গীতের প্রাণপুরুষ হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জীবনী নিয়ে "শঙ্খচিল'' নাটকটি৷ মূলত গণসঙ্গীত সৃষ্টির ক্ষেত্রে তাঁর অবদান, কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসা, তেলেঙ্গানা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং গ্রেপ্তার, জমিদার বাবা হরকুমার বিশ্বাসের সাথে চিন্তার টানাপোড়েন- এসব নিয়ে শঙ্খচিল নাটকটির গল্প আবর্তিত হয়েছে ৷ হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জীবনী নিয়ে মঞ্চস্থ হওয়া এ নাটকটি মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে উপভোগ করেন আগত দর্শকরা৷

শঙ্খচিল নাটক নিয়ে নির্মাতা গোবিন্দ রায় সুমন বলেন, শিল্পের সকল শাখায় সম্পৃক্ত থেকে হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জীবন ও মূল্যবোধকে ধারণ করে শঙ্খচিলের নির্মাণ। গণসংস্কৃতির শঙ্খচিল হেমাঙ্গ বিশ্বাস স্পর্শ করেছেন এই ভূখন্ডের অসংখ্য মানুষের হৃদয়, নানা ভাবে মানুষকে প্রাণিত করেছেন মানবিকতার দর্পণে। জীবনসংগ্রামী হেমাঙ্গ মানুষকে ছুঁয়ে নাটকিয়তার রসে আপনাতেই নাট্য চিন্তার এক ভূমি। ধুলোমাখা পথে সোনালী আলো যখন অবহেলা বৈষম্য আর নিগৃহিতের কান্নার শব্দে ভারী হয় তখন হেমের মনে নাচন ধরে। হেম তখন বিদ্রোহী হয়ে উঠে। শুধু নিরব বিলাপ নয় শ্রেণী সমাজে দারিদ্রের গর্ভে জন্ম নেওয়া প্রেম, প্রকৃতি, প্রণয় আর প্রতিবাদ সব কিছু কোথায় যেনো এক হয়ে মিশে গেছে নদী মাতৃক জরাভুমির ঢেউয়ের মিশ্রনে। অলিখিত নিয়মে গ্রাম্যতা আর গায়কী নিয়ে হেমের সুর ব্যাঙ্গ হয়েছে শোষণ ব্যবস্থার উপর। শোষিত শ্রমজীবী মানুষের বন্ধুত্ব আর ভালোবাসায় হেমাঙ্গ সূর্য চিন্তায় আরোহন করবেন নয়তো ধূলি হয়ে মাটিতে মিশে যাবেন, এরকম চিন্তায় নাটক চলে নাটকের পথে। নাটকে গল্প বলার আবেগ, কল্পনা, বাস্তবতা, অলঙ্কার রচনা আর প্রয়োগে অনেক ভাবনার অবতারণা চলে। বিভাজন আর সীমাবদ্ধতার গন্ডি পেরিয়ে নাটকে আমাদের নিরিক্ষা চলমান। মঞ্চে দর্শকদের আমরা বুদ্ধিমান ও সচেতন হিসেবে শ্রদ্ধা করি। তাই এই নাটক নিয়ে ভাবনার অধিকার প্রত্যেকের নিকট নিবেদন করলাম।

এর আগে তিনদিনব্যাপি এ নাট্য উৎসবের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক কামাল বায়োজিদ৷

নাট্য উৎসবের দ্বিতীয়দিন শুক্রবার(৫ এপ্রিল) মঞ্চস্থ হবে মাইকেল মধুসূদন দত্তের রচনায় ও শুভাশিস সিনহার নির্দেশনায় নাটক "কহে বীরাঙ্গনা" ও তৃতীয় দিন শনিবার (৬ এপ্রিল) মঞ্চস্থ হবে আনন জামানের রচনায় শুদ্ধমান চৈতনের নির্দেশনায় নাটক "সিক্রেট অব হিস্ট্রি"।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত