বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:২৫

এমন হারেও যে ইতিবাচক দিক দেখছেন মমিনুল

তিনদিনেই টেস্টে হার, দুই ইনিংসে ব্যাটিং বিপর্যয়, ভারতের রানের পাহাড়, এক ইনিংস ও ১৩০ রানে হার; এমন হারের পর সেখান থেকে ইতিবাচক কিছু পাওয়া কঠিন। তবে অধিনায়ক মমিনুল এই ম্যাচ থেকেও ইতিবাচক কিছু পাচ্ছেন, সেখান থেকে খুঁজছেন সান্ত্বনাও।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মমিনুল খুঁজতে চাইলেন সেই ইতিবাচক দিকটা। বললেন, ‘আমি বেশ কিছু ইতিবাচক দিক পাচ্ছি। বিশেষ করে আবু জায়েদ, চার উইকেট পেয়েছে। মুশফিকুর দুই ইনিংসেই (৪৩ ও ৬৪) দারুণ খেলেছে। লিটনও ভালো করেছে। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের খুব ভালো লাইন আপের বিপক্ষে খেলতে হয়েছে, এটা একটা চ্যালেঞ্জ। আমাদের ১৫-২০ ওভার টেকার চেষ্টা করতে হবে।’

টস জিতে ব্যাট করার কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর ম্যাচ শেষে নিজেই দ্বিধান্বিত তিনি সেই সিদ্ধান্তে। এনিয়ে তার মন্তব্য, ‘ম্যাচের ফলে টস প্রভাব ফেলেছে। এটা বেশ কঠিন ছিল। আমরা জিতে ব্যাটিং বেছে নিয়েছিলাম। সিদ্ধান্তটা আসলেই কঠিন ছিল।’

শেষ হয়ে ম্যাচ নিয়ে হতাশ না হয়ে শোনালেন আশাবাদের কথা। বললেন- পরের টেস্ট উপভোগের কথা। মমিনুল বলেন, ‘দিবারাত্রির টেস্ট খেলার কোনো অভিজ্ঞতা আমাদের নেই। আমরা সে ম্যাচটা উপভোগ করার চেষ্টা করব।’

ইন্দোরে দুই ম্যাচ সিরিজের এই টেস্টে বাংলাদেশ এজ ইনিংস ও ১৩০ রানে পরাজিত হয়েছে। এরআগে, ২০১৭ সালে হায়দরাবাদ টেস্টে ২০৮ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের পক্ষে কেবল মুশফিকুর রহিম দুই ইনিংসে ব্যাট হাতে উল্লেখের মত রান করতে পেরেছেন। প্রথম ইনিংসে ৪৩ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ইনিংস সর্বোচ্চ ৬৪ রান আসে মুশফিকের ব্যাট থেকে।

দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যানকে চারে না খেলানো নিয়ে ম্যাচ জুড়ে সমালোচনা হয়েছে। মুমিনুল জানান, মুশফিকের ব্যাটিং পজিশন পরিবর্তনের কথা ভাববেন তারা।... এটা নিয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। যদি টিম ম্যানেজমেন্ট মনে করে তাহলে আমার মনে হয় এটা ইতিবাচক ব্যাপার হবে। যদি মুশফিক ভাইকে ওপরে নেওয়া যায়। হ্যাঁ, নেওয়া যায়। আমার মনে হয়, দল ভেবে সিদ্ধান্ত নেবে।

দলের ব্যাটিং পারফরম্যান্সে নিজের অসন্তুষ্টির কথা জানান মমিনুল। বললেন, আমরা ভালো ব্যাট করিনি। তবে এর মধ্যেও ইতিবাচক দিক আছে। মুশফিক খুব ভালো খেলেছেন দুই ইনিংসেই। লিটন ভালো খেলেছে। মিরাজও ভালো করেছে আজ। তবে আমরা দল হিসেবে খেলতে পারিনি। জুটি করতে পারিনি। এটা খুব ভালো দলীয় পারফরম্যান্স নয়। ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ আমার মনে হয় ঠিক ছিল না। এই ধরনের প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে আপনাকে ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করতে হবে। আপনারা খেলা দেখেছেন, ওরা আলগা বল খুব কম করে। আমার মনে হয়, টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের আরও বেশি ধৈর্য নিয়ে ব্যাটিং করা উচিত।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত