রবিবার, , ১৮ নভেম্বর ২০১৮ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৮ মে, ২০১৮ ০১:৪২

বানরের ‘উৎপাত’ বন্ধে অর্থমন্ত্রীর শরণাপন্ন হবেন মেয়র

বানরের 'উৎপাত' বন্ধে করনীয় নির্ধারণের লক্ষে রোববার রাতে নগরীর শাহী ঈদগাহ এলাকার একটি কমিউনিটি সেন্টারে সিলেটের রাজনীতিবিদ জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিক সমন্বয়ে এক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

‘বানরের উৎপাত প্রতিরোধ কমিটির সিলেট’র আহবায়ক বদরুজ্জামান সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

সভায় রাজনীতিবিদ সমাজসেবী নগরীর বিশিষ্টজন বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরবৃন্দ পরিবেশবিদ সাংবাদিক ছাড়াও ভুক্তভোগী বিভিন্ন এলাকার নাগরিক উপস্থিত ছিলেন।

এতে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী তাঁর বক্তব্যে বলেন, বানরের উৎপাত নগরীর কিছু এলাকায় বেড়ে গেছে। এ সমস্যার আশু সমাধান হওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন।

সভার শুরুতে ‘বানরের উৎপাত ও বানর সুরক্ষা’ বিষয়ে সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন সাংবাদিক আব্দুল মালিক জাকা। পরে ইনাম মাহমুদ ও আব্দুল আহাদ এলিসের যৌথ উপস্থাপনায় শুরু হয় উন্মুক্ত আলোচনা।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, বানরের প্রতি বিদ্বেষ নয়। যে কোন উপায়ে বানর রক্ষা করতে হবে। তবে লোকালয় থেকে সরিয়ে এদেরকে গভীর অরণ্যে নিরাপদ আশ্রয়স্থলে ফিরিয়ে নিতে হবে। এর ফলে বানর তাদের আসল ঠিকানা খোঁজে পাবে। নগরীর বাসিন্দাদের মাঝেও ফিরে আসবে স্বস্তি।

তারা বলেন, নগরীর কয়েকটি এলাকায় বানর শিশু কিশোর এমনকি বয়স্ক নারী পুরুষদের কামড়াচ্ছে, বাড়িঘরে ঢুকে খাবারদাবার তছনছ বিনষ্ট করছে, উঠতি গাছপালা-ফল নষ্ট করছে, পথচারীদের হাত থেকে ব্যাগ কেড়ে নেয়াসহ নানা জ্বালাতন চালিয়ে যাচ্ছে। এসব প্রতিকারে অতীতে মানববন্ধন সহ নানা কর্মসূচি পালন ছাড়াও স্থানীয় প্রশাসন, বন বিভাগ এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগ সমূহে অনেক দৌড়ঝাঁপ করা হয়। প্রথমদিকে জেলা প্রশাসন ও বনবিভাগ কিছু তৎপরতা শুরু করলেও পরবর্তীতে অদৃশ্য কারণে সে উদ্যোগ মুখ থুবড়ে পড়ে যায় ।

বক্তারা প্রশাসন ও বন বিভাগের বিরুদ্ধে উদাসীনতায় অভিযোগ এনে অবিলম্বে কার্যকর জননিরাপত্তা নিশ্চিত না করা হলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়া ছাড়া গত্যন্তর নেই বলে অভিমত পোষণ করেন।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়- বিষয়ে বিষয়টি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের নজরে আনা হবে এবং তাঁর সহায়তা চাওয়া হবে। অর্থমন্ত্রী যখনই সিলেট আসবেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল তাঁর সাথে দেখা করে বিস্তারিত তুলে ধরবেন এবং তাঁর কাছে এর প্রতিকার চাইবেন।

সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর দিলওয়ার হোসেন সজীব। সভায় বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ, কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামিম, কাউন্সিলর এ বিএম জিল্লুর রহমান, শাহী ঈদগাহ কমিটির মোতওয়াল্লি জহির বক্ত, আওয়ামী লীগ নেতা মো. ফয়জুল আনোয়ার আলাওর, বাপা সিলেট এর সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সাবেক কাউন্সিলর হুমায়ুন কবির, কামরুল হাসান চৌধুরী, সাদিকুর রহমান, হুমায়ুন আহমদ মাসুক।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইমজা সভাপতি আশরাফুল কবীর,এনামুল কুদ্দুস চৌধুরী, অন লাইন প্রেসক্লাব সভাপতি মোহিত চৌধুরী, সাংবাদিক প্রত্যুষ তালুকদার, সাহাব উদ্দিন সিহাব ও আব্দুল মোমিন ইমরান, আমিনুর রহমান খোকন, খলিলুর রহমান বাবলু, সাদ উদ্দিন জাবেদ, মিসবাহ আহমদ,আব্দুল কাইয়ুম, কুতুব উদ্দিন, মো. ফজলুল হক, নুরুল মোমিন খোকন, আব্দুল মালেক, জয়নাল আবেদীন, মো. আকবর, মিহাদ আহমদ, মো. রফিক, লিটন আহমদ, আমিনুর রহমান পাপ্পু, আবুল কাশেম, সাজোয়ান আহমদ, নাহিদ উদ্দিন জুয়েল, শফিকুর রহমান, শামসুল আলম, নিজাম উদ্দিন, আফজাল আহমদ, আল আমিন উল্লাহ, মামুনুর রশীদ, ফখরুল ইসলাম, হারুনুর রশীদ, আব্দুল্লাহ আল বাকী, ইমাদ আহমদ, রিয়াদ আহমদ, জাবেদ আহমদ প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত