সিলেটটুডে ডেস্ক

০৩ ডিসেম্বর, ২০২৩ ০০:২৮

আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে ড. মোহাম্মদ সাদিককে তলব

নির্বাচনি আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগে সুনামগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিককে তলব করেছে নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটি।

শনিবার (০২ ডিসেম্বর) ওই প্রার্থীকে তলব ও শোকজ করা হয়েছে।

ড. মোহাম্মদ সাদিককে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়েছে, আপনি জনাব ড. মোহাম্মদ সাদিক সংসদীয় আসন সুনামগঞ্জ-৪ হতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত এমপি পদপ্রার্থী হিসেবে গত ২৯ নভেম্বর বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জ শহরের প্রধান প্রধান সড়কে মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা সহ শোডাউন করে গাড়িবহর নিয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সমাবেশে মিলিত হন। এমন শোডাউন করে জনগণের চলাচলের পথে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করেন, যা সুনামগঞ্জের স্থানীয় দৈনিক সুনামগঞ্জের সময় সহ বিভিন্ন পত্রিকায়, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এর মাধ্যমে আপনি সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা, ২০০৮ এর ৬ (ঘ), ৮(ক), ১০(ক) এবং ১২ বিধির বর্ণিত বিধান লঙ্ঘন করেছেন।

সাবেক এ নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবকে লেখা চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, ভবিষ্যতে এ ধরনের নির্বাচন পূর্ব অনিয়ম সংঘটিত না হওয়ার বিষয়ে আপনার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হলো এবং ওই প্রকাশিত সংবাদ বিষয়ে তদন্ত করে কেন নির্বাচন কমিশনে প্রতিবেদন প্রেরণ করা হবে না তৎমর্মে নিম্ন স্বাক্ষরকারীর কার্যালয়ে (যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ ১ম আদালত, জেলা ও দায়রা জজ আদালত, সুনামগঞ্জ) আগামী ০৪ ডিসেম্বর সোমবার বেলা ১১টায় আপনি স্বয়ং অথবা আপনার প্রতিনিধির মাধ্যমে লিখিত ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো।

নির্দেশনাটি দিয়েছেন সুনামগঞ্জের যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ কাঁকন দে।

এই অবস্থায় বর্ণিত বিষয়ে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনে অনুসন্ধান প্রতিবেদন প্রেরণের লক্ষ্যে আগামী ৩ ডিসেস্বর বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের ২১৫নং কক্ষে অবস্থিত নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি নির্বাচনি এলাকা নং-২০৭, আসন নংঃ নারায়ণগঞ্জ-৪ এর কার্যালয়ে ব্যক্তিগতভাবে কিংবা প্রতিনিধির মাধ্যমে উপস্থিত হয়ে লিখিত ব্যাখ্যাসহ কারণ দর্শানোর জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হলো।

এবারের সংসদ নির্বাচনে ২৯ টি দল ও স্বতন্ত্র মিলে দুই হাজার ৭১২জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছে। ইসি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র বাছাই চলবে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৫ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনি প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত