সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯ ইং

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক

০৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬ ২২:৫২

অ্যাসাঞ্জকে মুক্তি ও ক্ষতিপূরণ দিতে জাতিসংঘের নির্দেশ

২০১২ সাল থেকে ইকুয়েডোর দূতাবাসে আশ্রয় নিয়ে রয়েছেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসঞ্জ

মুক্তি পেতে যাচ্ছেন গোপন নথি ফাঁস করে আলোড়ন তোলা ওয়েবসাইট উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। 
  
শুক্রবার জাতিসংঘের একটি প্যানেল তার আটকে পড়া নিয়ে একটি তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে অ্যাসাঞ্জকে বন্দি দশা থেকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানানো হয়েছে। খবর বিবিসি'র। 
  
একই সঙ্গে অন্যায়ভাবে আটকে রাখায় তাকে ক্ষতিপূরণ দেয়ারও নির্দেশনার কথা বলা হয়েছে জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে। 
  
জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ তিন বছরেরও বেশি সময় লন্ডনে অবস্থিত ইকুয়েডর দূতাবাসে অবস্থান করছেন। 
  
জাতিসংঘ প্যানেলের প্রতিবেদন অ্যাসাঞ্জের পক্ষে গেলেও তাতে অবশ্য প্যানেলের সব সদস্যরা সম্মতি দেননি। পাঁচজনের মধ্যে তিনজন সদস্য অ্যাসাঞ্জের পক্ষে তাদের মত দিয়েছেন। 
  
প্যানেল প্রধান সিওঙ ফিল হঙ বলেন, ওয়ার্কিং গ্রুপ 'নির্বিচারে আটক' রাখায় অ্যাসাঞ্জ যে বঞ্চনার শিকার হয়েছেন, তা খতিয়ে দেখেছে। চলাফেরা বাধাগ্রস্থ করা হয়েছে, তাকে অবশ্যই ক্ষতিপূরণ দেয়া দরকার। তার আগে দরকার তার অন্যায় বন্দি দশার অবসান। 
  
এর আগে অ্যাসাঞ্জ ঘোষণা দিয়েছিলেন, যদি প্যানেল তাকে দোষী ঘোষণা করে, তাহলে তিনি আত্মসমর্পণ করবেন। আর তা না হলে শুক্রবারই তিনি ইকুয়েডর দূতাবাস ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে আসবেন। 
  
প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে কয়েক লাখ মার্কিন গোপন নথি ফাঁস করে সারা দুনিয়ায় হইচই ফেলে দেয় উইকিলিকস। এরপর ধর্ষণের অভিযোগে সুইডেনে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা এবং গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। গ্রেফতার এড়াতে তিনি লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে আশ্রয় নেন। এরপর থেকে তিনি সেখানেই অবস্থান করছেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত