রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১৫ মে, ২০১৯ ১২:৪৭

নিখোঁজের তিন মাস পর সাবেক সেনা সদস্যকে থানায় দিল র‌্যাব

সেনাবাহিনীর সাবেক করপোরাল মুকুল হোসেন তিন মাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন। তাকে তিন মাস আগে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ পরিবারের সদস্যদের। এত দিন খোঁজ করে তার কোনো হদিস পাওয়া যায়নি।

গত বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিমানবন্দর থানা থেকে মুকুলের সন্ধান পান পরিবারের সদস্যরা। থানা থেকে জানানো হয়, ইয়াবাসহ তাঁকে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছেন র‌্যাবের সদস্যরা।

মুকুল হোসেনের ভাই মনিরুজ্জামান জানান, বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ভাইয়ের সন্ধান না পেয়ে তারা নিরাশ হয়ে যান। এরপরই বিমানবন্দর থানা থেকে ফোন পান। পরে তারা সেখানে যান। পুলিশি হেফাজতে মুকুল হোসেন তাদের বলেছেন, তাকে সাদাপোশাকে কে বা কারা তুলে নিয়ে তিন মাস আটকে রেখে নির্যাতন করেছে। পরে তাকে ৭০০ ইয়াবা বড়ি দিয়ে বিমানবন্দর থানায় সোপর্দ করে র‌্যাব। তাকে কোথায় রাখা হয়েছিল, সে সম্পর্কে কোনো তথ্য দিতে পারেননি মুকুল।

তবে মনিরুজ্জামান দাবি করেন, তার ভাই মাদক ব্যবসায় জড়িত নন। তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

তার পরিবারের অভিযোগ, গত ৩ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১০টার দিকে দিকে কলাবাগানের দ্বিতীয় লেনের এক বন্ধুর বাড়িতে ৮-১০ জন অস্ত্রধারী হানা দেয়। তারা নিজেদের ডিবি পুলিশের সদস্য বলে পরিচয় দেয়। পরে মাথায় সাদা কাপড় পেঁচিয়ে মুকুল হোসেনকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় প্রথমে কলাবাগান থানা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) নিতে রাজি না হলেও পরে তা গ্রহণ করে।

মুকুল হোসেন সপরিবারে আশুলিয়ায় থাকেন। তাকে তুলে নেওয়ার ঘটনায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ও পুলিশের মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) কাছে মুকুল হোসেনের স্ত্রী জিয়াসমিন স্বামীকে উদ্ধারের আবেদন করেন। পরিবারের সদস্যরা মানবাধিকার কমিশন, পুলিশ সদর দপ্তর, ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ও গোয়েন্দা বিভাগে যোগাযোগ করে মুকুলের কোনো হদিস পাননি। অবশেষে থানাহাজতে তার দেখা মিলল।

বিমানবন্দর থানা–পুলিশ বলছে, তাদের কাছে ইয়াবাসহ মুকুলকে সোপর্দ করেন র‌্যাব–১–এর সদস্যরা। এর আগে তিনি কোথায় ছিলেন বা কী হয়েছিল এসব বিষয়ে তারা কিছুই জানে না।

এ বিষয়ে র‍্যাব-১–এর পরিদর্শক শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘আগে মুকুল হোসেন কোথায় ছিলেন, তা আমি জানি না। মাদকসহ মুকুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ বিষয়ে আর কোনো সহযোগিতা করতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করছি।’

আপনার মন্তব্য

আলোচিত