বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৪:৫৫

রোহিঙ্গা মহাসমাবেশের মদদদাতারা শনাক্ত

প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশের পেছনে জড়িতদের শনাক্ত করেছে তদন্ত কমিটি। এতে চিহ্নিত মদদদাতাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যানিটি রাইটসের সভাপতি মুহিবুল্লাহ, সহ-সভাপতি মাস্টার আব্দুর রহিম, সাধারণ সম্পাদক ও উখিয়া ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক নূরুল মাসুদ ভূঁইয়া, সংগঠনের উপদেষ্টা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী দুলাল মল্লিক, কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি, জেলা দুদকের পিপি, পুলিশের এক এএসআই এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষককে শনাক্ত করা হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, রোহিঙ্গাদের সমাবেশের আগে ‘এডিআরএ’ নামের একটি এনজিও গত ১৯ ও ২১ আগস্ট কক্সবাজারের কলাতলির শালিক রেস্তোরাঁয় বৈঠক করে। বৈঠকে আলোচিত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহকে আড়াই লাখ টাকা অনুদান দেওয়া হয়। এছাড়া ‘আল মারকাজুল ইসলামী সংস্থা’ সমাবেশে রোহিঙ্গাদের জন্য টি-শার্ট তৈরিতে সহযোগিতা করে। পরে ২৫ আগস্ট কুতুপালংয়ের মধুরছড়া এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করে রোহিঙ্গারা। এছাড়া, নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফুটবল খেলার মাঠ ডি-৫ ব্লকে ভিন্ন ভিন্ন সংগঠনের পক্ষে সমাবেশ ও র‌্যালি করা হয়।

এতে বলা হয়, সমাবেশ সফল করতে ডি-৫ ব্লকে আরআরসি সংগঠনের চেয়ারম্যান সিরাজুল মোস্তফার নেতৃত্বে ২৫ হাজার টাকা করে চাঁদা সরবরাহ করা হয়। সংগঠনের সেক্রেটারি সাইফুল হকের নিকটাত্মীয় ও স্বজন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করায়, তাদের কাছ থেকেও চাঁদা সংগ্রহ করা হয়। বিশেষ করে লন্ডনে বসবাসরত নূরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি প্রায় ৫-৬ মাস আগে সংগঠনের (আরআরসি ) অফিস নির্মাণের জন্য ২ লাখ টাকা অনুদান দেন। এই সংগঠনের মূল কমিটি ২৫ জনের। সমাবেশের টি-শার্ট তৈরি করতে ক্যাম্পে কর্মরত পুলিশের এএসআই বোরহান উদ্দিনের মোটরসাইকেল ব্যবহার করা হয় বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

গত ২৫শে আগস্ট মিয়ানমারে নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার দুই বছর পূর্তিতে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করে লাখ লাখ রোহিঙ্গারা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত