রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১২:৪৪

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গুজব ও উস্কানি প্রচারে অনলাইন টিভি

২৫ আগস্ট রোহিঙ্গারা বিশাল সমাবেশ করে। ফাইল ছবি

রোহিঙ্গা সংকটের দুই বছর পূর্তিতে প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কক্সবাজারের উখিয়া ক্যাম্পের ভেতরে রোহিঙ্গাদের বিশাল সমাবেশ আয়োজনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহযোগিতাকারী ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাকে চিহ্নিত করেছে জেলা প্রশাসন। জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই সমাবেশ আয়োজনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতদের শনাক্ত করা হয়েছে। জানা গেছে, সমাবেশকে ঘিরে বেশ কিছু অনলাইনভিত্তিক টেলিভিশন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গুজব ও উস্কানি ছড়িয়ে প্রত্যাবাসনের বিরোধিতা করে আসছে। ওই সমাবেশকে কেন্দ্র করে তাদের কার্যক্রম জোরদার হয়েছিল।

রোহিঙ্গা শিবিরে সক্রিয় যে অনলাইন টিভিগুলোর নাম জানা গেছে যার মধ্যে রয়েছে ‘রোহিঙ্গা পিস টিভি’, ‘রোহিঙ্গা নিউজ আরাকান টিভি’, ‘আরাকান আর ভিশন’, ‘আরাকান টাইমস’, ‘রোহিঙ্গা নিউজ’, ‘আরাকান টাইম টুডে’, ‘রোহিঙ্গা টিভি’, ‘আরাকান নুর’, ‘এএনএ’ টিভি। এসব টিভিতে খবর ও অনুষ্ঠান প্রচারিত হয় রোহিঙ্গা ভাষায়। সরাসরি ওয়েবসাইটে গিয়ে অথবা ইউটিউবে এসব চ্যানেল দেখা যায়। এছাড়া অনেক টিভিরই ফেসবুক পেজ রয়েছে।

সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে এসব চ্যানেল পরিচালিত হয়। আর রোহিঙ্গা শিবির থেকে এসব চ্যানেলের জন্য ফুটেজ পাঠানো হয়। এসব ফুটেজ আবার বিভিন্ন ফেসবুক পেজ ও গ্রুপে শেয়ার করেছে রোহিঙ্গারা। এসব ফেসবুক গ্রুপ ও পেজ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে প্রবাসী রোহিঙ্গা ও শিবিরে থাকা কিছু যুবক। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইন্টারনেট কাভারেজ থাকায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে তারা খুব সহজেই সংগঠিত হতে পেরেছিল।

জানা যায়, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাংলাদেশি টিভি ও ইউটিউব চ্যানেলের চেয়ে মিয়ানমারের চ্যানেল বেশি চলে। সম্প্রতি রোহিঙ্গাদের মহা সমাবেশসহ নানান খবরাখবর নিয়ে এসব চ্যানেল সক্রিয় হয়ে উঠেছে। উখিয়া টেকনাফের ৩৪টি আশ্রয় শিবিরের বাসিন্দাদের মধ্যে এসব টিভি চ্যানেলের এক ধরনের জনপ্রিয়তা তৈরি হয়েছে।

কক্সবাজার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, রোহিঙ্গাদের অনলাইনভিত্তিক কিছু চ্যানেলের মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হচ্ছে, এমন অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। শিবিরে সাড়ে পাঁচ লাখ লোকের হাতে মুঠোফোন থাকার তথ্য পুলিশের কাছে রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। গত মঙ্গলবার থেকে বিটিআরসি রোহিঙ্গা শিবিরে ১৩ ঘণ্টা ইন্টারনেট সংযোগ সীমিত রাখার জন্য নির্দেশনা দেয়।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিয়ন্ত্রণ প্রশাসনকে নিতে হবে। এজন্য রোহিঙ্গাদের ব্যবহৃত সব মোবাইল সিমও নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। যাতে ২৫ আগস্টের মতো মোবাইল ব্যবহার করে লাখ লাখ রোহিঙ্গা জড়ো হতে না পারে। তিনি বলেন, সম্প্রতি তিনি ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। সমাবেশ আয়োজনের হোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত