রবিবার, , ১৮ নভেম্বর ২০১৮ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৭ মে, ২০১৮ ০১:৪৮

আরবরা আধুনিক হচ্ছে, আমরা পেছনে যাচ্ছি: এমএ মান্নান

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন- আরবরা এখন আধুনিক হয়ে উঠছে। তারা আধুনিক শিক্ষা ও জ্ঞান-বিজ্ঞানের আধুনিক জিনিস গ্রহণ করছে। অথচ আমরা দিনদিন পিছিয়ে যাচ্ছি। আমরা আরবের উৎস খোঁজায় ব্যস্ত।

রোববার সিলেটে আয়োজিত 'বৈশ্বিক উন্নয়ন এজেন্ডার আলোকে অভিবাসন চ্যালেঞ্জ: প্রসঙ্গ বাংলাদেশ'- শীর্ষক নাগরিক সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এই সংলাপে অংশ নিয়ে এক বক্তা আরবে শ্রমিক পাঠানোর আগে আরবি ভাষা শিক্ষা প্রদানের বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলেন।

এ প্রসঙ্গে টেনে প্রধান অতিথির বক্তব্য এমএ মান্নান এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, সেদেশের লোকজনও এখন আরবির চেয়ে ইংরেজিকে বেশি গুরুত্ব দেয়। তাই আমাদের ইংরেজি শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। এটি আরব বিশ্ব ছাড়াও অন্যান্য দেশেও কাজে লাগবে।

সংলাপে বক্তারা বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি শ্রমিকরা গিয়ে নির্যাতিত ও প্রতারিত হওয়ার প্রসঙ্গ টেনে এবারে বাংলাদেশি দূতাবাসের ভূমিকার সমালোচনা করেন।

এসব সমালোচনার সাথে একমত পোষণ করে এমএ মান্নান বলেন, আমাদের আসলে কূটনৈতিকের প্রয়োজন নেই। আমরা ছোট দেশ, অর্থনৈতিকভাবেও দূর্বল। আমরা বিশ্বের শক্তিমাল দেশগুলোর সাথে কী কূটনীতি করবো? ওসব রাজা উজিড় মারা আমাদের কাজ নয়। আমাদের বরং কূটনৈতিকের চাইতে সেবকের প্রয়োজন। অভিভাসী শ্রমিকদের সেবক প্রয়োজন নয়। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, ঔপোনিবেশিক মানসিকতা ও দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা সংস্কৃতির কারণে এটি রাতারাতি পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। এজন্য সবার আগে মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে।

রোববার বিকেলে নগরীর একটি হোটেলের হলরুমে এই সংলাপের আয়োজন করে ব্র্যাক ও এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বর্তমান সরকার এরই মধ্যে এমডিজি অর্জন করেছে। এখন এসডিজি বাস্তবায়নের পথে রয়েছে।

তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে স্থিতিশীল শাসনে যে অর্জনটা সরকার করেছে, তা বিশাল। আমাদের এখন খেটে খাওয়ার সময়, কাজ করার সময়। আমরা যাতে না উঠতে পারি সেই ষড়যন্ত্র চলছে। আসুন সবাই মিলে আমাদের এই দেশটাকে গড়ি। দেশের জন্য কাজ করি।

নাগরিক প্ল্যাটফর্মের কোর গ্রুপ সদস্য ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি) এর সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান সংলাপের মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

এতে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, এনজিও ব্যুরোর মহা পরিচালক একেএম আব্দুস সালাম ও শাবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন।

এছাড়া বিদেশ গিয়ে প্রতারিত ও নির্যাতিত হওয়া বিভিন্ন ভুক্তভোগী, গবেষক, শিক্ষাবিদ, এনজিওকর্মী ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা এ সংলাপে অংশ নেন।

বক্তারা প্রবাসে জনশক্তি রফতানির ক্ষেত্রে হয়রানি নিরসন, দালালদের দৌরাত্ম্য বন্ধ, বিদেশে শ্রমিক নির্যাতন বন্ধে হাইকমিশনের জোরালো পদক্ষেপ ও দক্ষ জনশক্তি রপ্তানির উপর গুরুত্বারোপ করেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত