শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৪৭

সুরমায় জেলের জালে রূপালী ইলিশ

দেশের সর্ববৃহৎ মিঠা পানির জলাভূমি সিলেটের হাকালুকি হাওর। প্রতি বর্ষা মৌসুমে হাকালুকি হাওরে ছোট আকারের ইলিশ ধরা পড়লেও এবার সিলেটের সুরমা নদীর মিঠা পানিতে জেলেদের জালে ধরা পড়ছে বড় আকারের রূপালী ইলিশ।

রোববার (২০ অক্টোবর) বিকেলে সুরমা নদীর বিশ্বনাথের লামাকাজি এলাকায় জেলেদের জালে ধরা পড়ে প্রায় সোয়া দুই কেজি ওজনের একটি রূপালী ইলিশ। যা দেখে জেলেদের মধ্যে আনন্দ-উল্লাস ও হাসির ঝলক ফুঠে উঠছে।

রূপালী ইলিশ মূলত লোনা পানির সামুদ্রিক মাছ, যার দেখা সচরাচর মিঠা পানিতে দেখা যায় না। যদিও ইলিশ লবণাক্ত জলের মাছ বা সামুদ্রিক মাছ, বেশিরভাগ সময় তারা সাগরে থাকে কিন্তু বংশবিস্তারের জন্য প্রায় ১২০০ কিমি দূরত্ব অতিক্রম করে বাংলাদেশ ও পূর্ব ভারতের নদীতে তাদের আগমন ঘটে।

সাধারণত বড় নদী এবং মোহনায় সংযুক্ত খালে এদের বর্ষাকালে পাওয়া যায়। এ সময় ইলিশ মাছ ডিম পাড়তে সমুদ্র থেকে বড় নদী এবং মোহনায় সংযুক্ত খালে আসলেও সুরমার মিঠাপানিতে এমন ইলিশের দেখা মেলে না বললেই চলে। যদিও মেলে সেগুলো খুব ছোট আকৃতির।

জানা যায়, রোববার ১১ জন জেলে প্রায় ৬শ হাত দৈর্ঘ্যের বিশাল জাল ফেলেন সুরমার বুকে। স্থানীয়ভাবে এটাকে ‘পাঞ্চাল’ বলে। জালটি কাছে ভেড়াতেই রূপালী ইলিশের দেখা মেলে।

লামাকাজি এলাকার জেলে ষাটোর্ধ হামিদ উদ্দিন বলেন, আমরা দিনে অন্তত দু’তিনবার সুরমার বুকে  জাল ফেলি। কখনও এত বড় ইলিশের দেখা মেলে না। কদাচিৎ উঠলেও ছোট আকৃতির একটি দু’টি ইলিশ মিলত। সাধারণত এ ধরনের ইলিশ মাছ সুরমার বুকে পাওয়া বিরল।

এর আগে দেশের সর্ববৃহৎ মিঠাপানির হাওর হাকালুকি ও চেঙেরখালে জেলেদের জালে ধরা পড়ে রূপালী ইলিশ।

রূপালী ইলিশ হাতে জেলেরা জানান, প্রতি বর্ষা মৌসুমে হাকালুকি হাওরে ছোট আকারের ইলিশ ধরা পড়ে। হাওরটিতে কুশিয়ারা নদীর সংযোগ থাকাতে হাকালুকিতে ইলিশ মাছ প্রবেশ করতে পারে।

মিঠাপানিতে ইলিশ পাওয়া প্রসঙ্গে সিলেট সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা দ্বিজরাজ বর্মণ বলেন, সিলেটে যে ইলিশ মিলছে, ওটা সাগরের নয়, লোকাল প্রজাতির। তবে বর্ষায় মিঠাপানির মধ্যে হাকালুকি হাওরে বেশি ইলিশ মেলে। সুরমা বা চেঙেরখাল নদীতে মাঝেমধ্যে ইলিশ দেখা যায়। 

তিনি আরও বলেন, ইলিশের এই প্রজাতিকে টিকিয়ে রাখার জন্য গবেষণা প্রয়োজন। এজন্য উপর মহলে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত