COVID-19
CORONAVIRUS
OUTBREAK

Bangladesh

Worldwide

330

Confirmed Cases

21

Deaths

33

Recovered

1,554,960

Cases

91,828

Deaths

345,833

Recovered

Source : IEDCR

Source : worldometers.info

রিপন দে, মৌলভীবাজার

২৫ মার্চ, ২০২০ ১৩:০২

চাহিদা ৫ হাজার পিপিই, মিলেছে মাত্র ১০০!

ঝুঁকিতে মৌলভীবাজারের চিকিৎসক-নার্সসহ সংশ্লিষ্টরা

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী নিরাপত্তামূলক পোশাকের অভাবে ঝুঁকিতে রয়েছেন মৌলভীবাজারের ডাক্তার-নার্সসহ সংশ্লিষ্টরা। প্রাথমিকভাবে পাঁচ হাজার পিপিইর চাহিদাপত্র পাঠানো হলেও মিলেছে মাত্র ১০০। এই ১০০ নিয়েও চিকিৎসকদের অভিযোগ তা নিম্নমানের।

মৌলভীবাজার সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস থেকে ডাক্তার-নার্সসহ সংশ্লিষ্টদের সুরক্ষা দিতে পাঁচ হাজার পিপিইর চাহিদাপত্র দেওয়া হয় কিন্তু এসেছে মাত্র ১০০।

সোমবারে (২৩ মার্চ) রাতে এই ১০০ পিপিই সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে পৌঁছালে মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) তা বিতরণ করা হয়েছে জেলার বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের ডাক্তারদের মধ্যে।

এই ১০০ পিপিইর মধ্যে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালের চিকিৎসকদের ২০টি, সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে পাঁচটি, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঁচটি, জেলা সদরে বক্ষব্যাধি হাসপাতালে পাঁচটি এবং জেলায় বাকি ছয়টি উপজেলায় ১০টি করে পিপিই দেয়া হয়েছে।

তবে এই ১০০ পিপিই শুধু ডাক্তারদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। করোনা রোগীসহ অন্যদের সার্বক্ষণিক দেখভালের দায়িত্বে থাকা হাসপাতালের নার্স, আয়া, ওয়ার্ড বয়সহ টেকনিশিয়ানরা এখনো কোনো নিরাপত্তা পোশাক পাননি।

এদিকে ডাক্তাদের মাঝে বিতরণ করা পিপিইর মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তারা।

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালের এক চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতামত হচ্ছে, একটি পিপিই একবার পড়া যাবে। কিন্তু আমাদেরকে বলা হচ্ছে এই একটিই প্রতিদিন জীবাণুমুক্ত করে দেওয়া হবে, এটিই বারবার পড়তে হবে। একে তো একটি পিপিই বারবার পড়তে হবে তার ওপর এই পিপিইর মান সন্তোষজনক নয়।

এদিকে পিপিই না পেয়ে নিজেদের নিরপত্তা নিয়ে শঙ্কিত মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের ডিপ্লোমা মেডিকেল ফ্যাকাল্টির (ডিএমএফ) ইন্টার্ন ছাত্ররা। তারা নিরাপত্তা সামগ্রী না পেয়ে মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) থেকে কর্মবিরতি পালন করছেন।

ডিএমএফ এর সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জাভেদ হোসেন ইমন জানান, আমরা ৬১ জন ছাত্র করোনার আতঙ্ক নিয়ে চিকিৎসা দিয়ে আসছি। বারবার কর্তৃপক্ষের সাথে পিপিই নিয়ে আমাদের আলোচনা হয়েছে। কিন্তু তারা প্রতিবারই ২ দিন-৩ দিনের সময় নিচ্ছেন কিন্তু দিতে পারছেন না না। আমাদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য যতক্ষণ না পিপিই পাচ্ছি আমরা কর্মবিরতি পালন করবো। মঙ্গলবার দুপুর থেকে শুরু করেছি এ কর্মবিরতি।

মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন তাওহীদ আহমদ জানান, মৌলভীবাজার জেলায় পিপিই কতগুলো লাগবে তা নির্ভর করছে আমাদের রোগীর চাপ কেমন হবে তার ওপর। প্রাথমিকভাবে আমরা পাঁচ হাজার পিপিইর চাহিদাপত্র পাঠিয়েছি। এখন পর্যন্ত যা পেয়েছি তা প্রয়োজনের তুলনার খুবই নগণ্য। আমরা বিভিন্নভাবে সংগ্রহ করার চেষ্টা করছি সরকারি এবং বেসরকারি উপায়ে।

পিপিইর মানের বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের যা আছে তা নিয়েই আমাদের লড়তে হবে। আমরা যা পেয়েছি তা দিয়েই রোগীদের সর্বোচ্চ সেবা দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত