সোমবার, ২৭ মে ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১৫ মে, ২০১৯ ১৫:১২

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে টেক প্রতিযোগিতা

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের উদ্যোগে ‘প্রপার প্লেসমেন্ট অব রিইনফোরসমেন্ট ইন আরসিসি একর্ডিং টু বিএনবিসি কোড’ বিষয়ক সেমিনার ও আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় রিজিওনাল টেক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ মে) বেলা ২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যালারি-০১ এ অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক।

এতে মূল বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিইই বিভাগের অধ্যাপক ড. মোস্তাক আহমেদ।

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের আগামীর স্বপ্নের একটি ঘর এবং একটি বাড়ি গড়ার কারিগর উল্লেখ করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক বলেন, বিশেষত্ব এবং বিশেষ গুণাবলী নিয়ে প্রকৌশলীদের কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে এবং বিশ্বের মাঝে বাংলাদেশের সুনাম ছড়িয়ে দিতে বর্তমানে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আজকের এ সেমিনার থেকে অর্জিত জ্ঞান সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের কর্মক্ষেত্রে সহায়ক হবে উল্লেখ করে বিল্ডিং কোড মেনে স্ট্রাকচার তৈরি করার জন্য তিনি প্রকৌশলীদের আহবান জানান।

প্রফেসর ড. মোস্তাক আহমেদ বলেন, আরসিসি স্ট্রাকচার এ রিইনফোরসমেন্টের জন্য সঠিক স্থান নির্ণয় এবং রডের সঠিক দূরত্ব নির্ণয় করে স্ট্রাকচার তৈরি করতে হবে। এতে পরবর্তীতে যাতে প্লাস্টার ফেটে না যায় তার জন্য স্টিল/রড এবং কংক্রিটের সঠিক পরিমাণ বজায় রাখতে হবে। বেশী স্টিল/রড ব্যবহার করলে স্ট্রাকচার মজবুত হবে তা ঠিক নয়।

তিনি বলেন, সেনেটারি পাইপ এবং ইলেক্ট্রিক লাইন স্থাপনের সময় কলাম এবং বিমের যাতে কোন ক্ষতি না হয় এবং রডে যাতে মরিচা না ধরে সেই দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে কলামই হলো ভিত্তি মজবুতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো। সেজন্য কলামের দূরত্ব কত হবে, রড কীভাবে স্থাপন করতে হবে এবং টাই কতটুকু দূরত্বে দিতে হবে তার সঠিক নির্দেশনা মেনে আরসিসি স্ট্রাকচার তৈরি করতে হবে।

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় প্রধান ইঞ্জিনিয়ার মো. আবু জাফরের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন লিডিং ইউনিভার্সিটির আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. এম রকিব উদ্দিন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মেজর (অব.) মো শাহ আলম, পিএসসি, সিই অ্যালামনাই এর উপদেষ্টা সাব্বির আহমেদ ওসমানী, কো-এ্যাডভাইজার অমিত চক্রবর্তী, সিই অ্যালামনাই এর প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে লিডিং ইউনিভার্সিটি কর্তৃক আয়োজিত রিজিওনাল টেক কম্পিটিশনে স্পন্সর প্রতিষ্ঠান বিএসআরএম এবং সেভেন রিং এর পক্ষ থেকে বিজয়ীদেরকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার এবং সনদ প্রদান করা হয়।

প্রতিযোগিতায় পোস্টার ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন হয় লিডিং ইউনিভার্সিটির চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নাফী। মেকানিক্স অলিম্পিয়াড ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদালয়ের শিক্ষার্থী অর্দা জান্নাত তুহিন এবং রানারআপ লিডিং ইউনিভার্সিটির মো. ওয়াহিদুজ্জামান সুমন, ডিজিটাল ড্রাফটিং এ চ্যাম্পিয়ন  লিডিং ইউনিভার্সিটির আব্দুল বারী এবং রানারআপ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মো. নাজমুল হাসান দিপু, জেনারেল নলেজ ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসফিক আহসান হৃদয় এবং রানারআপ লিডিং ইউনিভার্সিটির মানশী দাস, ফটোগ্রাফি ক্যাটাগরি-১ এ চ্যাম্পিয়ন হয় লিডিং ইউনিভার্সিটির ফজলে রাব্বি মৃদুল এবং রানারআপ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সি.এম. আরিফ, ফটোগ্রাফি ক্যাটাগরি-২ এ চ্যাম্পিয়ন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তুহিন হামিদ এবং রানারআপ লিডিং ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী তন্ময় কর্মকার।

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিই অ্যালামনাই সদস্য সামান্নুর মাহিয়ানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক এবং আঞ্চলিক টেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত