বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ ইং

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

০৬ নভেম্বর, ২০১৯ ১৯:৩৯

গাইবান্ধায় সাঁওতাল হত্যার ৩ বছরপূর্তিতে মানববন্ধন

জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে বুধবার সকাল ১১টায় গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল হত্যাকাণ্ডের ৩ বছর পূর্তিতে মূল আসামিদের বাদ দিয়ে পিবিআই’র চার্জশিটের ওপর নারাজি এনে মানববন্ধন হয়েছে।

মানববন্ধনে ৭ দফা দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাজশাহী জেলার সভাপতি বিমল রাজোয়াড়ের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক আন্দ্রিয়াস বিশ্বাস, রাজশাহী জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুসেন কুমার শ্যামদুয়ার, আদিবাসী যুব পরিষদ রাজশাহীর যুগ্ম-আহবায়ক উপেন রবিদাস, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহান, সাধারণ সম্পাদক তরুণ মুন্ডা, কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক অনিল রবিদাস প্রমুখ।

সংহতি জানিয়ে বক্তব্য দেন কলামিস্ট মুক্তিযোদ্ধা প্রশান্ত কুমার সাহা, সাংবাদিক ও ন্যাপ রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিরুর রহমান খান আলম, জন-উদ্যোগ রাজশাহীর ফেলো জুলফিকার আহমেদ গোলাপ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গাইবান্ধায় পুলিশের গুলিতে তিন সাঁওতাল শ্যামল হেমব্রম, রমেশ টুডু ও মঙ্গল মার্ডির হত্যার ৩ বছর পার হয়ে গেলেও হত্যাকাণ্ডের বিচার হয় নি। সম্প্রতি পিবিআই কর্তৃক দাখিলকৃত চার্জশিটে ঘটনার মূলহোতা প্রধান আসামি তৎকালীন সাংসদ আবুল কালাম আজাদসহ অভিযুক্তদের বাদ দেওয়া হয়েছে, এবং অধিগ্রহণকৃত তাদের বাপ-দাদার জমি এখনো ফেরত পায় নি। রংপুর চিনিকল কর্তৃপক্ষ ও হত্যাকারীরা প্রতিনিয়ত আদিবাসীদের সন্ত্রাসী হামলার হুমকি ও ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। সাঁওতালদের ঘর-বাড়িতে অগ্নিসংযোগকারী পুলিশ প্রশাসনকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে পারে নি সরকার। ক্ষতিগ্রস্তদের যথাযথ পুনর্বাসনের কোন উদ্যোগ সরকার এখনো নিতে পারে নি। এতে আদিবাসী-বাঙালিদের মাঝে সুষ্ঠু বিচার নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

বক্তারা তিন সাঁওতাল হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণসহ সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্মের আদিবাসী-বাঙালিদের বাপদাদার ১৮৪২.৩০ একর জমি ফেরত, ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত সহ ৭ দফা দাবি জানান।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত