মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ ইং

স্পোর্টস ডেস্ক

১০ জুলাই, ২০১৯ ২৩:১১

৪৫ মিনিটের আক্ষেপে পুড়ছেন কোহলি

ইনিংসের প্রথম ১৯ বলের মধ্যে নেই টপ অর্ডারের ৩ উইকেট। প্রথম পাওয়ার প্লেতেই পতন হয় চতুর্থটির। দলীয় ২৪ রানের মাথায়। তারপরও লড়াই করেছে ভারত। তবে লক্ষ্য থেকে দূরেই থামতে হয়েছে দলটিকে। বিদায় নিতে হয়েছে বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে হারের পর ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি জানান, ওই বাজে শুরুটাই ডুবিয়েছে তাদের।

গোটা বিশ্বকাপে সেরা মানের ক্রিকেট খেলেছে ভারত। লিগ পর্বে মাত্র একটা ম্যাচ হেরেছিল তারা। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেদিনও অবশ্য জয়ের পথেই ছিল দলটি। তবে ইনিংসের শেষ পাঁচ ওভারই গড়ে দিয়েছিল ম্যাচের ফল। তাদেরকে কিছুটা চাপে ফেলতে পেরেছিল কেবল আফগানিস্তান আর বাংলাদেশ। লিগ পর্ব শেষে ভারত ছিল পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। অর্থাৎ বিশ্বকাপের সবচেয়ে ‘ফেভারিট’ দল হিসেবেই সেমিফাইনালে উঠেছিল দলটি।

সেমির প্রথম ভাগেও ভারতের দাপট। রিজার্ভ ডেতে গড়ানো ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে তারা বেঁধে ফেলে ২৩৯ রানে। কিন্তু বুধবার (১০ জুলাই) ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে রান তাড়ায় শুরুতেই ভীষণ চাপে পড়ে ভারত, দলীয় ৫ রানের মধ্যে হারায় টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে। দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল এবং অধিনায়ক বিরাট কোহলি- তিনজনেরই ব্যক্তিগত সংগ্রহ যথাক্রমে ১, ১ ও ১ রান!

অথচ এই তিন ব্যাটসম্যান পুরো আসরে ব্যাট হাতে আলো ছড়িয়েছেন। রোহিত এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। কোহলির রান চারশোর বেশি। রাহুলের ব্যাট থেকেও এসেছে সাড়ে তিনশোর বেশি রান। কিন্তু ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে কেউই দলের জন্য দাঁড়াতে পারেননি। মেঘলা আবহাওয়া আর উইকেটের ফায়দা নিয়ে ভারতের ব্যাটিং লাইনআপে শুরুতেই তোপ দাগেন দুই কিউই পেসার ট্রেন্ট বোল্ট ও ম্যাট হেনরি। রোহিত ও রাহুলকে ফেরান হেনরি। মাঝে কোহলির মহামূল্যবান উইকেটটি নেন বোল্ট। দশম ওভারের শেষ ডেলিভারিতে কার্তিককে নিজের তৃতীয় শিকার বানান হেনরি।

ধ্বংসস্তূপ বনে যাওয়া ভারত তারপরও জয়ের আশা জাগায় মহেন্দ্র সিং ধোনি ও রবীন্দ্র জাদেজার ব্যাটে। সপ্তম উইকেটে ১০৫ বলে ১১৬ রান যোগ করেন তারা। চার-ছক্কার পসরা সাজিয়ে দুর্দান্ত ব্যাটিং করতে থাকা জাদেজাকে থামান বোল্ট। এরপর ভারতের সম্ভাবনার শেষ আলোটুকু নিভে যায় মার্টিন গাপটিলের অবিশ্বাস্য এক থ্রোতে ধোনি রানআউটে কাটা পড়লে। কিউই বোলারদের দুর্দান্ত পারফম্যান্সে শেষ পর্যন্ত ২২১ রানে অলআউট হয়েছে তারা। ২৪০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় হার মেনেছে ১৮ রানে।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কোহলি বলেন, ‘ম্যাচের প্রথম অংশে আমরা একেবারে নিখুঁত ছিলাম। মাঠে আমরা যা চেয়েছিলাম, তা পেয়েছিলাম। আমরা জানতাম, গতকালটা আমাদের ভালো কেটেছিল। আমাদের মনে হয়েছিল, আমরা কাঙ্ক্ষিত মুহূর্তটা পেয়ে গেছি। তবে নিউজিল্যান্ডের বোলারদের কৃতিত্ব দিতেই হবে। উইকেট থেকে সুইং ও সাহায্য পাওয়ায় তারা তাদের দক্ষতা প্রদর্শন করতে পেরেছে।’

‘জাদেজা বেশ কয়েকটা দারুণ ম্যাচ খেলেছে (বিশ্বকাপে)। মহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে দুর্দান্ত জুটিতে সে খুবই সাবলীল ছিল। ম্যাচটার ভাগ্য দোদুল্যমান ছিল আর তখনই ধোনি রানআউট হয়ে গেলেন।’

‘(ইনিংসের শুরুতে) ৪৫ মিনিটের বাজে ক্রিকেট আমাদেরকে বিশ্বকাপের আসর থেকে ছিটকে দিল। এটা মেনে নেওয়া কষ্টকর। নিউজিল্যান্ড যোগ্য দল হিসেবে জিতেছে। তবে আমাদের শট নির্বাচন আরও ভালো হতে পারত। আমরা গোটা আসরে ভালো মানের ক্রিকেট খেলেছি। এদিন গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলোতে নিউজিল্যান্ড সাহসের পরিচয় দিয়েছে আর এটা তাদের প্রাপ্য ছিল।’

আপনার মন্তব্য

আলোচিত