Advertise

সিলেটটুডে ডেস্ক

২১ মে, ২০২০ ১৩:২৯

আম্পান: পটুয়াখালীতে দুজনের মৃত্যু

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে উপকূলীয় জেলা পটুয়াখালীতে গতকাল বুধবার দুজনের প্রাণহানি হয়েছে।

এর মধ্যে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) একজন মাইকিং করে সবাইকে আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার কথা বলার সময় নৌকাডুবিতে মারা যান। আর আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার সময় গাছের ডাল ভেঙে পড়লে মারা যায় ৫ বছরের এক শিশু।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের ৬নং ইউনিট সিপিপির টিম লিডার শাহ আলম বুধবার সকালে স্থানীয়দের আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য নৌকায় করে মাইকিং করেন। ঝড়ো বাতাসে তার নৌকাটি ডুবে যায়। তিনি নিখোঁজ হন। সন্ধ্যায় ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা তার মরদেহ উদ্ধার করেন।

গলাচিপা উপজেলার খরিদা গ্রামের রাশেদ (৫) গতকাল রাতে বাবা-মায়ের সঙ্গে আশ্রয়কেন্দ্রের পথে রওনা হয়। পথে ঝড়ে গাছের ডাল ভেঙে পড়লে সে মারা যায়।

এদিকে ঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাসে জেলার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে সদর উপজেলার ছোটবিঘআই ইউনিয়নের পায়রা নদীর বাঁধ এবং দশমিনার রনগোপালদি এলাকার বাঁধ ভেঙে গেছে।

জলোচ্ছ্বাসে উপকূলের অনেক মাছের ঘের ভেসে গেছে। জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে ফসলের জমি। গ্রামীণ সড়কের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক মো. মতিউল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ব্যাপক ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে ৮ কিলোমিটার বাঁধ সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। জোয়ারের পানিতে ফসসি খেত ডুবে যায়। তবে ভাটায় পানি নেমে যাচ্ছে। এ কারণে ক্ষতির পরিমাণ হয়ত কিছুটা কম হবে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত